বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে 'সতর্ক অবস্থানে' আইসিসি

বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে 'সতর্ক অবস্থানে' আইসিসি

বিশ্বকাপে তাদের ম্যাচটাই ‘হটকেক’। আগের বিশ্বকাপগুলোর মতো এবারো ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দুই দেশের দ্বন্দ্বে শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা হবে কিনা, সেটাই এখন বড় প্রশ্ন। আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন বলছেন, পুরো পরিস্থিতি সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন তিনি। আইসিসির সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে, দুই দল যেন কিছুতেই ম্যাচ বয়কট না করে।
গত এক যুগে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হয়নি। আইসিসি টুর্নামেন্টে মুখোমুখি হলেও দ্বিপাক্ষিক সিরিজ না খেলায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল পিসিবি। শেষ পর্যন্ত অবশ্য ওই মামলায় হেরে উল্টো ক্ষতিপূরণ দিতে হয়েছে পাকিস্তানকে। কিছুদিন আগে কাশ্মীরে সেনা সদস্যদের ঘাটিতে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকেই পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কটা আরো অবনতি ঘটেছে ভারতের। সেই ঘটনার প্রভাব পড়েছে ক্রিকেটেও, ভারতে বন্ধ করা হয়েছে পিএসএলের সম্প্রচার। ভারতের ক্রিকেটভক্তরা আহবান জানিয়েছেন, ভারত যেন বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে না খেলে।
এমন অবস্থায় আসন্ন বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে জেগেছে সংশয়। রিচার্ডসন জানিয়েছেন, আরও কিছুদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পরেই দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে চিঠি লিখবেন তিনি, ‘এখনো আমরা বিসিসিআই ও পিসিবির সাথে আনুষ্ঠানিকভাবে কথা বলিনি। যে হামলার ঘটনা ঘটেছে সেটায় আমরা ব্যথিত। এখন পর্যন্ত ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচ নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই। তাও আমরা সবসময় পরিস্থিতি সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। ক্রিকেট দুই দেশের মানুষকে কাছে আনে। আশা করি ভবিষ্যতেও সেটা হবে।’
যদি ভারত কিংবা পাকিস্তানের কেউ একজন ম্যাচটি বয়কট করে, তাহলে? রিচার্ডসন বলছেন, আইসিসির নিয়ম অনুযায়ীই তখন ব্যবস্থা নেওয়া হবে, ‘যদি কেউ বিনা কারণে ম্যাচ খেলতে অপারগতা জানায়, তাহলে আইসিসির যে নিয়ম আছে সেই অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো পরিস্থিতি আসবে না বলেই আমরা আশাবাদী।’
এদিকে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের টুর্নামেন্ট পরিচালক স্টিভ এলওর্থি বলছেন, ফাইনালের চেয়েও ভারত- পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে দর্শকের আগ্রহ বেশি, ‘এই ম্যাচটা হয়ত বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া ইভেন্ট। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের টিকেটের জন্য প্রায় চার লাখ মানুষ আবেদন করেছিলেন! স্টেডিয়ামে ধারণক্ষমতা মাত্র ২৫ হাজার। এমনকি ফাইনালের টিকেটের জন্য এর চেয়ে অনেক কম আবেদন জমা পড়েছে! এই দুই দল অবশ্য ফাইনালে আবার খেলতে পারে! আমরা আগেও এই দুই দেশকে আইসিসির টুর্নামেন্টে মুখোমুখি করিয়েছি। এবারও সেটাই করব, আশা করি কোনো বাধা আসবে না।’
আইসিসি যতই বলুক, বর্তমান পরিস্থিতিতে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে সংশয়ের মেঘ যেন কিছুতেই কাটছে না।

No comments

Powered by Blogger.