আয়ারল্যান্ডেই বিশ্বকাপ প্রস্তুতি সারতে চায় টাইগাররা

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে দারুণ ব্যস্ত বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। দেশের সবচাইতে বড় এই ক্রিকেট লিগে ক্রিকেটারদের চেষ্টা থাকে কিভাবে নিজেকে মেলে ধরা যায়। এরই মধ্যে আলো ছড়াতে চাইছে অনেকেই। যদিও এবারের প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ শেষ হবে এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিকাংশ ক্রিকেটারই এখানে ব্যস্ত সে লিগে। এদিকে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ শুরু হতে বাকি আর মাত্র দুই মাস। কিন্তু লিগ চলায় বৈশ্বিক আসরটির জন্য ঘরের মাঠে আলাদা প্রস্তুতি নিতে পারছে না লাল-সবুজের দল। কাজেই বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় ত্রিদেশীয় সিরজেই পাখির চোখ করেছে কোচ স্টিভ রোডস শিষ্যরা।
আর এর কারণটিও স্পষ্ট। কন্ডিশন বিবেচনায় আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ড খুব কাছাকাছি। আবহাওয়া ও উইকেটের আচরণ দুটিই প্রায় অনুরূপ। তাই ৫ মে থেকে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় ত্রিদেশীয় সিরিজেই টিম বাংলাদেশ বিশ্বকাপের জন্য ষোলো আনা প্রস্তুত হবে বলে মনে করেন টাইগারদের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন। গতকাল বুধবার হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে সংবাদ মাধ্যমকে একথা জানান এই টাইগার ব্যাটসম্যান।
মিঠুন জানালেন, ‘আয়ারল্যান্ডের কন্ডিশন আমরা যতটুকু জানি অনেকটাই ইংল্যান্ডের মত। ওইটা অবশ্যই খুব ভালো কাজে দেবে আমোদের প্রস্তুতির জন্য। আর আয়ারল্যান্ডে যে ত্রিদেশীয় সিরিজ হবে সেখানে থাকবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ওরাও অনেক ভালো দল। আয়ারল্যান্ডের কন্ডিশনে আয়ারল্যান্ড দলটাও খারাপ না। তাই ওদের বোলিং খেলতে পারলে ওখানেই আমাদের ভালো একটা প্রস্তুতি হয়ে যাবে।
বাংলাদেশ ক্রিকেটাঙ্গনের অনেকেই মনে করছেন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ দিয়েই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হয়ে যাবে। বিষয়টিকে ভুল বলে আখ্যায়িত করলেন এই টাইগার সদস্য। তিনি বলেন প্রস্তুতি বলতে এখন তো ঢাকা লিগ চলছে। ঢাকা লিগে ফোকাস করতে হচ্ছে। আর আলাদাভাবে প্রস্তুতি বলতে আমরা এখনো শুরু করিনি ওভাবে। শুরু করবো ইচ্ছে আছে। আর এখন যেহেতু বাংলাদেশে প্রিমিয়ার লিগ খেলে যদি চিন্তা করি ইংল্যান্ডে প্রস্তুতি হয়ে যাচ্ছে এটা ভুল।
কারণ ওদের কন্ডিশন সম্পূর্ণ ভিন্ন। সদ্য সমাপ্ত নিউজিল্যান্ড সিরিজে ব্যাট হাতে বেশ ছন্দে ছিলেন মিঠুন। সিরিজের শেষ ম্যাচে ইনজুরির আগে স্বাগতিকদের বিপক্ষে খেলা দুই ওয়ানডেতেই করেছেন হাফ সেঞ্চুরি। আর সে ইনিংস দুটি ছিল যথাক্রমে ৫৭ এবং ৬২। নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে ব্যাক টু ব্যাক এমন ইনিংস সন্দেহাতীতভাবেই তাকে বিশ্বকাপে বাড়তি আত্মবিশ্বাস যোগাবে। তবে মিঠুন ভাবছেন অন্যভাবে। তার মতে ইনিংস দুটি আরো বড় হতে পারতো। ওইটা আমার একটা দায়িত্ব ছিল। আর সে দায়িত্ব আমি পুরোপুরি পালন করতে পারিনি। কারণ দুইটা ইনিংসই আরো বড় করা যেত। আর সেটা পারলে নিজের আত্নবিশ্বাসটা অনেক বেড়ে যেতো। তবে এখন কেবলই সামনের বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবছেন বলে জানালেন মিঠুন।
তিনি বলেন, বিশ্বকাপ যেকোন ক্রিকেটারেরই স্বপ্ন। আমিও স্বপ্ন দেখছি বিশ্বকাপ খেলার। তবে সে জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে হবে। আর সে প্রস্তুতির আদর্শ মঞ্চ হতে পারে আয়ারল্যান্ডে আয়োজিত ত্রিদেশীয় সিরিজ।

No comments

Powered by Blogger.