তামীম চৌধুরীর পদাবলি


তামীম চৌধুরীর পদাবলি




ইতিবৃত্ত

হঠাৎ বর্ষণ হলে জল হবে
জলে এলে মাছ পাবো;- এই আশায়
শুকনো পুকুরেও বড়শি ফেলেছিলাম

...আমার গন্তব্য ছিলো 'ভালোবাসা'
হাঁটতে হাঁটতে পা হারিয়ে ফেললাম

  

একদিন

শেষ দু পঙক্তির স্বপ্ন আমাকে অনুপ্রেরণা দেয়
স্বপ্নটি এখনো আমাকে
পৃথিবীর পথে হাঁটায়

ভালোবেসে ফেললে
এমনটা স্বাভাবিক
পোকায় খাওয়া বীজটিও
পাথরের জমিনে বপন করে মানুষ
জল না পেলে ছিটিয়ে দেয়
                          চোখের মজুত

একটি স্বপ্ন
এখনো আমাকে
পৃথিবীর পথে হাঁটায়!

প্রিয়তম ধারালো ছুরি
দেখো দেখো;- পাথরের প্রান্তরে
অরণ্য গজাবে
এমন লোভে
'একদিন' করে করে
অনেকদিন বেঁচে আছি

বহুল আকাঙ্খিত সেইদিন
যদি কখনো আসে
শাদা খরগোশ হয়ে তোমাকে নিয়ে
হারিয়ে যাবো সবুজ তৃণের ভেতর...




সেই যে কবে;- তখন থেকে


স্মৃতিপুস্তক আমি নিয়মিত পাঠ করি
তাই ধূলিবালি কিছুই জমেনি তাতে

মনে আছে মনে পড়ে
মনে পড়ে পড়ে মন পোড়ে
এইযে তোমার চোখের কসম:
আরশিতে আপন মুখ দেখার মতন
সবকিছু এখনো দারুণ স্পষ্ট
ছোটছোট দাগগুলো- দেখা যায়
মনে আছেভীষণ মনে পড়ে
মনে পড়ে পড়ে আড়ালে মন পোড়ে

সেই যে কবে মধ্যরাতে মধ্যাকাশে
তোমায় আমি দেখিছিলাম তারার ভিড়ে
নিজের জায়গা বদলেছিলে নড়েচড়ে
       তখন থেকে রাত্রি আমার দারুণ প্রিয়

সেই যে কবে নিবিড় ঘন পাতার ভিতর
তোমায় আমি দেখেছিলাম শিস্ বাজাতে
তখন থেকেই বৃক্ষরোপণ
আমার কাছে গুরুত্ব পায়
তখন থেকে গুলতি হাতে ছোকরা পেলে
এই ছেলেটার পিতার কাছে নালিশ করি

বছর দশেক হতে পারে
কিংবা তারো ...নে.. আগে
দীঘির ফটিক জলের ভিতর
         তোমায় আমি
           দুলতে দেখেছিলাম বলেই
            জ্যোৎস্না রাতে আজো এখন
               জলের নিচে চন্দ্র খুঁজি

সেই যে কবে সেই যে কবে
গোলাপ হাতে দাঁড়িয়েছিলাম তোমার তরে
মনে আছেমনে পড়েহয়তো তুমি ভুলেই গেছো

সেই যে কবে সেই যে কবে
কতো লক্ষ জন্ম আগে
আমি তোমার হয়ে আছি;- হিসেব করে বলতে হবে!




কারণ
একটি বাগান যদি ঘুরেফিরে দেখো
দেখবে- গোলাপ গাছে শুধু গোলাপই ফোটে
বকুলে শুধু বকুলই আসে

ধরো এমন হলে;-
কোনো বিশেষ গাছে এক জাতের নয়
নানান ফুল ফুটে আছে- এক ডালে জুঁই
আরেক ডালে চামেলি
এখানে ওখানে হাসনাহেনা
ফাঁকফোকরে শিউলি;- তবে
এই বিশেষ গাছটি হবে
বাগানের প্রধান আকর্ষণ
মালি- তার যত্ন নেবে ঢের

তুমি ঠিক এমন একটি বৃক্ষের তুলনা
যার একেক ডালে একেক জাতের প্রণয়
আমি তাই বাগানের মালির মতো চাই
আমার বুকে তুমি শতায়ু হও;- কিংবা তার- অধিক


চাকা

তোমার সঙ্গ পেলে
আমার হস্তরেখায় নেমে আসে স্বর্ণযুগ

মুক্তা কিংবা জ্যোৎস্নার সাথে
তুলনা দেয়াটা নিছক ভুল হবে;
তোমার ঠোঁটের যুগান্তকারী হাসি
পাথরে পাথর ঘঁষে ঘঁয়ে
আগুন আবিষ্কারের সমতুল্য

ওরা জানে
তারা জানে
আমি জানি
তুমি- জানো
আর জানে আরশে আজিমে উপবিষ্ট ঈশ্বর
তোমার প্রফুল্ল মুখটি আমার অগ্রগতির চাকা



No comments

Powered by Blogger.