আইরিন সুলতানা লিমার পদাবলি


 আইরিন সুলতানা লিমার পদাবলি







শূন্যফল

              মনে তার জং ধরেছে
চোখে পড়েছে পোকা
তাই সে এখন
খায় শুধু ধোঁকা
কোনটা সাদা, কোনটা কালো
ফারাক বুঝে না
সব যে এখন তার কাছে
কালো রঙের পোকা
কত হিসেব -কত নিকেষ
মাথায় ঘোরে তার
অবশেষে শূন্য ফলে
উত্তর মেলে তার

মিনতি

নীলাকাশ আমায় ছুঁয়ে দিলো
সূর্যালোকের মাঝে
আমার সাথে খেল করিলো
ঢেউয়ের তালে তালে

আমার জলে সাঁতার কেটে
গাইলো সুখের গান
তাহার রঙে রাঙিয়ে শেষে
আমার অথৈ জলপান

তুমি যেমন ভালোবেসে
আমার মাঝে ছুঁয়ে থাকো
তেমনি করে ভালোবেসে
আমিও তোমার জমিনে ভাসি

মেঘ হয়ে ভাসি
তোমার নীলসাদা জমিনে
বৃষ্টি হয়ে কাঁদি
যদি তুমি ব্যথা দাও মনে

কেঁদে কেঁদে আসি ফিরে
মাটির কাছে মাতৃক্রোড়ে
তুমিও ক্ষমা চেয়ে
বারে বারে আসো ফিরে

না তুমি বেঁধে রাখো
তোমার কাছে যতন করে
না তুমি আমায় ছাড়ো
যেতে দাও বহুদূরে

তোমার এই আসা-যাওয়া
জাগায় বেদন আমার মাঝে
আমায় রাখো বেঁধে
এই মিনতি তোমার কাছে

এসো না প্রেম

নৈঃশব্দ্যের ভীড়ে সে আসে
সে আসে, তারা ভরা রাতে
হৃদয় কোটরে অতি গোপনে
সে আসে, শয়নেস্বপনে

কতবার বলি, এসো না
এসো না চদ্রিমা রাতে
হৃদয় পোড়াতে এসো না
এসো না আলোকিত প্রাতে

আমার চিন্তালোকে হঠাৎ করে
সে আসে, খেয়াল ভুলিয়ে
সে এসে কেমন করে
আমার হৃদয় যায় জুড়িয়ে!

মুখের কথায় তাড়াই যারে
কটু কথা শুনিয়ে
হৃদয় মাঝে হারাই তারে
প্রেম আসে লুটিয়ে

নদীর ব্যথা

ওই যে নদী ভেঙে যায়
বিষাদের লহরীতে,
কেউ বিষ মেশায় তাতে
কেউ আঘাত করে
কেউ পরিহাস করে
কেউ আবার উচ্ছিষ্টে ভরায়-
তাতে কি নদী মরে যায়!
নাকি বিলীন হয়ে যায়!
এত ব্যথা এত জ্বালা নিয়ে
যায় সে এগিয়ে
বয়ে যায় সুদূরে
উদাস গায়ের জরাজীর্ণ ছিন্ন কোটরে
নদীর ভালোবাসা নাই
তবুও নদীর মৃত্যু নাই

কনফিউজড

স্বরের পরিবর্তন
নাকি মানুষের পরিবর্তন
নাকি অন্য কেউ
মিথ্যে নামের কেউ
নাকি শয়তানের প্রেতাত্মা
নাকি ভুতের বাড়ির কেউ!
গুলিয়ে যাচ্ছে
ধোঁকা দিচ্ছে -
আজ কাল
স্বর সত্য না, লেখা সত্য
নাকি কানের পর্দা অসত্য
ভেল্কিবাজি
ভীষণ পাজি
খেলছে কীসব আজব খেলা
জটিল ধাঁধায় যায় বেলা

No comments

Powered by Blogger.