টিপু সুলতানের পদাবলি


টিপু সুলতানের পদাবলি



আগুয়ান- কবিতা - টিপু সুলতান
টিপু সুলতানের পদাবলি - আগুয়ান



একগুচ্ছ কবিতার লাইন


শতবর্ষ পা এগিয়ে যায়। জীবনানন্দের পথে-
যতদূর শব্দ দেখা যায়যতদূর স্বপ্ন খেলে

ধূসরে ওড়ে হেমন্তের ঠুনকো কুয়াশার ঝাঁক
উড়ে এসে খেলে যায় কার্তিকের ধান শালিক
দিগন্তের আধামরা পাতায় দৈনন্দিন মহাকাল-
নীরবতায় ছোটে মাঠঘাটঅপরূপ গহীন
ওপাশ পথে অরণ্য আর দিন-দুপুরবৈকাল পেরুনো
নির্জন রাতট্রামের ঝংকারশহরের নির্ঘুম-ফেরাফিরি
কাগজের পোস্টালে একগুচ্ছ কবিতার লাইন!



প্রাক্তন


সে যাক। তোমার পৃথিবীতোমার নীলবর্ণ চোখে-
পেঁচিয়ে ধরো-প্রাক্তন চৌকাঠ খুলে পরিত্যক্ত মায়ার-মাদকে কাবিননামা মুখতার নগরে গ্রীবা আলগা নাচঘর,
কারোর চুম্বন গোলাপে পুড়ে যাকঝলকে উঠুক অন্ধকারে-
শিস বাজানো নিকোটিন ঠোঁটের বকশিসে বলে দাও
প্রাক্তন উঠোন আমার পরিত্যক্ত ধূলো পায়ের ছাপ!



কুয়াশার শৈশব হেমন্ত


নিদ্রাহীন গাঁটবাধা রাত যেনো জ্যোৎস্না দুপুর
নক্ষত্রজ্যোতির হাড় পরে দাঁড়ানো
পাকা পেয়ারার মতো মজ্জমান মাংসের ওপর 
বনদূরে তাকিয়ে রয় মাংসফুঁড়ে নবজাতক ফুল-

কমলা আলোর বুনোপথআদিডাঙার ঢেঁড়সপাতা চোখ
ভোরের ভেতর নেচে ওঠে কুয়াশার শৈশব হেমন্ত
-জলজ্যান্ত ধানমাঠহ্যাঙলা নদীর ভাসমান নাগরিক




পাণ্ডুলিপি


আমার দেখা পৃথিবীর পান্ডুলিপি
এনেছিল অসংখ্য বর্ণনার সমবেতকণ্ঠ
ঝরাপাতার চিহ্নঘাসজলে কোমল মায়া
পাহাড়ের ওপর তারার একপাড়া সন্ধে

সন্ধ্যার অন্তঃগহরে লুকানো ইরম পাঠ
 চা রঙের মৃণ্ময়ী মেশানো জৈবিক ভোর
গোধূলি আলোবেলুনের মতো ভাসমান
অচেনা পৃথিবী ফেঁপে ওঠা সকল যাযাবর



লোক শোক


পুবের পৃথিবীঃ এ্যালজেব্রায় ক্রস করছে-আড়াআড়ি
লাল টিপের মতো সূর্য সেঁটে যাচ্ছে কাবুলি মেয়ের গায়
কেবল চারপাশ লিকলিকে অন্ধকার। নিঃসঙ্গ পাখি-
নিজ শরীরে আলো আঁকছে। জীবিত মাছের চোখ নির্বাসিত;
লোক শোক বুজে ছায়াবীথির মগজে করাতকাটা কল-
ওড়ে যাচ্ছে শিমুল তোলাআঁকাবাঁকা মাইল পেরোয়-
বায়ু-ভাসা ক্ষুদ্র গোত্রে পরস্পর;যার যেখানে পৃথিবী সুন্দর




No comments

Powered by Blogger.